trinamoole dev political issue

ব্যুরো নিউজ, ১২ ফেব্রুয়ারি: ঘাটাল নিয়ে রীতিমতো জলঘোলার পর শেষে সেই লোকসভায় যে দেব ওরফে দীপক অধিকার আবার লোকসভায় প্রার্থী হচ্ছেন সে কথা প্রার্থী তালিকা ঘোষণার আগেই স্পষ্ট করে দিলেন তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সেই সময় ঘাটাল লোকসভায় প্রার্থী হিসাবে তৃণমূলের দাবীদার ছিল অনেক। সেই ক্ষোভের আগুনে দেবকে প্রার্থী করে জল ঢেলে দিয়েছেন মমতা। আর দেবকে প্রার্থী করার সঙ্গে  ঘাটাল সাংগঠনিক জেলা তৃণমূলের চেয়ারম্যান পদ থেকে সরিয়ে দেওয়া হল প্রাক্তন বিধায়ক শঙ্কর দোলইকে। তার জায়গায় চেয়ারম্যান করা হয়েছে ডেবরার প্রাক্তন তৃণমূল বিধায়ক রাধাকান্ত মাইতিকে। দিন কয়েক আগে দেবকে নিয়ে একটি ভিডিও ভাইরাল হয়। আর ওই ভিডিও ক্লিপের পেছনে শঙ্করের ষড়যন্ত্র আছে বলে দেব অনুগামীরা সোচ্চার হয়েছিলেন। দেব আগেই জানিয়ে দিয়ে ছিলেন যে, সাংসদ হওয়ার জন্য তিনি কারোর কাছে যাননি। তার রাজনীতিতে আসার পেছনে লাভ করার উদ্দেশ্য নেই। তার জায়গায় বরং সাংসদ করার জন্য দলেরই কেউ কেউ তাদের স্ত্রীকে রেকামেন্ড করেছেন তিনি কোনও দিনই সংগঠনে ঢোকেননি, আর ঢুকবেনও না।

trinamoole dev political issue

বিশ্বাস রাখছেন মমতার ওপরে

কয়েকমাস আগে থেকেই বেসুরে বাজছিলেন দেব। দল ও সাংসদ পদ ছাড়ার আবছা ইঙ্গিত দেন। সংসদেও তার দ্বিতীয় টার্মের শেষ ভাষণে বলেছিলেন, আমি থাকি বা না থাকি ঘাটাল মাস্টার প্ল্যান কার্যকর করুক কেন্দ্রীয় সরকার। এই সমস্যা তৃণমূল বা বিজেপির নয়। সমস্যা সাধারণ মানুষের। ঘাটালের বন্যা রোধের একমাত্র উপায়ই হল এই প্ল্যান বাস্তবাহিত করা।  শনিবার দলের সাধারণ সম্পাদক সাংসদ অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে বৈঠক করেন দেব। তারপর বৈঠক হয় মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে। তাতেই গলে যায় বরফ। এরপরেই রবিবার  সেই সেমি-বিদ্রোহী দেব জানিয়ে দিলেন ঘাটাল থেকে আবার তিনিই সাংসদ হচ্ছেন। শঙ্কর দোলইরা আন্দাজ করতে পারেননি যে দলের সর্বচ্চো পর্যায়ে দেবের গ্রহণযোগ্যতা আর মমতার স্নেহ অবিসংবাদী। দেব নাকি তার সাংসদ কোটার টাকার ৩০ শতাংশ কাটমানি নিতেন। এহেনও ভিডিও নিয়ে সোচ্চার হয়েছিলেন শঙ্কর দোলই। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের  বুঝতে পেরেছিলেন, তার দলেরই কয়েকজন উচ্চিংড়ে দেবের পেছনে হাত ধুয়ে লেগে পড়েছে। তারাই দেবের বিরুদ্ধে কুৎসা ছড়াচ্ছে। দেবের ওজনও শঙ্করের মতো পেটি রাজনিতিকরা বুঝতে পারেনি। ফল যা হওয়ার তাই হল। পত্রপাঠ শঙ্করকে বিদায় অভিনন্দন জানিয়ে দিল দল। সেই সঙ্গে বার্তা দিয়েদিলেন, দেবের মতো স্বচ্ছ ব্যক্তিত্বের পেছনে লেগোনা। তৃণমূলের নৌকা থেকে মাঝ গঙ্গায় তাকে ফেলে দেওয়া হবে।

Advertisement of Hill 2 Ocean

বেচারা শঙ্কর দোলই বলে দিলেন, দল সিদ্ধান্ত নিয়েছে, আমার আর কি বলার আছে? রাধাকান্ত মাইতিকে অভিনন্দন। দেবের পেছনে লাগতে গিয়ে তাকে যে ধরাশায়ী হতে হবে সেটা বোধহয় ভুনাক্ষরেও আন্দাজ করতে পারেনি শঙ্কর। দেবের দুর্নীতি প্রচার করে দলকে যেনও তারা গনতন্ত্রমুখী ও স্বচ্ছ করতে চান। কিন্তু পোড় খাওয়া রাজনীতিবিদ মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এই ষড়যন্ত্র বুঝতে অসুবিধা হয়নি। তাছাড়া দেবের বিকল্পও সেখানে মমতার হাতে নেই। এমন অনস্থায় দেবকে তিনি সরাবেন কেন? দেব অভনয় করে ও ছবি পরিচালনা করে যথেষ্ট বিত্তসম্পদের অধিকারী। দেবও পাল্টা বলে দিয়েছেন, আমি দলের কাছে এমন কিছু চাইনি যা দল আমাকে দেয়নি। আমি কোনও কারনে অন্য দলে চলে যাবো এমনটা নয়।  দলের প্রতি আনুগত্যি আমার কাছে বড় কথা। দলই আমাকে বলেছে জে, তৃণমূল কংগ্রেসের আমাকে দরকার। আমি রাজ্য সরকারকে বিশ্বাস করি। কিন্তু কীভাবে কেন্দ্রকে বিশ্বাস করতে পারি? সাত দশক ধরে ঘাটালে বন্যা নিয়মিত হয়ে চলেছে। আমি দশ বছর ধরে  সাংসদ হয়ে প্রথমেই ঘাটাল মাস্টার প্ল্যান বাস্তবাহিত করার অনুরোধ করেছি সংসদে। লিখিত প্ল্যানও সাবমিট করা হয়েছে। কিন্তু মোদী সরকার উদাসীন। ঘাটালবাসীরা প্রতি বছরই বন্যায় ভুগছেন। শনিবারের আলচনায় তিনি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের থেকে আশ্বাস পেয়েছেন যে এই সমস্যা সমাধানের বিষয়টি তিনি নিজে দেখবেন। আর সে জন্যই বিশ্বাস রাখছেন। ইভিএম নিউজ

বিশ্ব জুড়ে

গুরুত্বপূর্ণ খবর

বিশ্ব জুড়ে

গুরুত্বপূর্ণ খবর