ব্যুরো নিউজ, ১৪ নভেম্বর: বায়ুদূষণের শীর্ষে দিল্লী! বায়ুদূষণের শীর্ষে দিল্লী 

ফের দিল্লীজুড়ে ধোঁয়াশার পুরু চাদর। দীপাবলির রাতেই দূষণের শীর্ষে পৌঁছল রাজধানী দিল্লী। বৃষ্টিতে রাজধানীর আকাশ হয়ে উঠেছিল পরিষ্কার। তবে নিষেধাজ্ঞা সত্ত্বেও বাজি ফাটানোর জেরে রবিবার রাতেই দিল্লীতে বায়ুদূষণের মাত্রা পৌঁছয় বিপদসীমায়।

খাস কলকাতার বুকে পথ দুর্ঘটনায় ফের মৃত্যু 

দীপাবলির রাতে এয়ার কোয়ালিটি ইনডেক্স (একিউআই) পৌছয় ৯৯৯-তে। যা গুরুতর পরিস্থিতির ইঙ্গিত। সুইস গ্রুপের ‘আইকিউ এআইআর’-এর সমীক্ষা রিপোর্টে প্রকাশ করা হয়েছে, এই মুহূর্তে বিশ্বে বায়ুদূষণের তালিকার শীর্ষে রয়েছে দিল্লি। রাজধানীর বাতাসে দূষণের মাত্রা ৪২০। এবং চতুর্থ স্থানে কলকাতা। অষ্টম স্থানে মুম্বই। কলকাতা ও মুম্বইয়ে একিউআই যথাক্রমে ১৯৬ ও ১৬৩।

দূষণহীন দিল্লি বদলে গেল দীপাবলির রাতে। এই পরিস্থিতির জন্য বিজেপি শিবিরের দিকেই আঙুল উঠছে। কারণ, সুপ্রিম কোর্টের কড়া নির্দেশের পরেও বাজি ফাটানোর জন্য দিল্লিবাসীকে বাহবা দিয়েছেন গেরুয়া শিবিরের নেতা কপিল মিশ্র। একটি টুইটে তিনি বলেছেন, ‘দিল্লির জন্য গর্বিত। এটাই হল প্রতিবাদ, স্বাধীনতা আর গণতন্ত্রের কণ্ঠ। অযৌক্তিক, অবৈজ্ঞানিক এবং বাজি নিষেধাজ্ঞার স্বেচ্ছাচারী নির্দেশকে সাহসের সঙ্গে অবজ্ঞা করেছে দিল্লি।’

পাশাপাশি আগামী ১ জানুয়ারি পর্যন্ত দিল্লিতে বাজি তৈরি, মজুত, বিক্রি সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ। এমনকী সবুজ বাজিও নিষিদ্ধ। সেখানে দীপাবলির রাতে কী করে ফাটল দেদার বাজি? কী করছিল পুলিস?

দিল্লিতে ক্ষমতায় আপ সরকার। আর পুলিস অমিত শাহের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের অধীন। এই পরিস্থিতিতে আপ সরকারের পরিবেশমন্ত্রী গোপাল রাইয়ের অভিযোগ, ‘দিল্লিতে বাজি ঢুকেছে পার্শ্ববর্তী বিজেপি শাসিত রাজ্য উত্তরপ্রদেশ, হরিয়ানা থেকে।’ কংগ্রেস এমপি মণীশ তিওয়ারি প্রশ্ন তুলেছেন, ‘মাত্র চার ঘণ্টার নোটিসে যদি গোটা দেশে লকডাউন হয়, তাহলে বাজি ফাটানো বন্ধ করা গেল না কেন?’ ইভিএম নিউজ

বিশ্ব জুড়ে

গুরুত্বপূর্ণ খবর

বিশ্ব জুড়ে

গুরুত্বপূর্ণ খবর