Supreme judgment. AAP in Chandigarh

ব্যুরো নিউজ, ২১ ফেব্রুয়ারি: অবশেষে সুপ্রিম কোর্টের প্রধান বিচারপতির ডিভিশন বেঞ্চেও ঐতিহাসিক রায়ের পরে পাঞ্জাবের চণ্ডীগড় পুরসভায় জয় পেল আপ- কংগ্রেস জোট। বিষয়টি নিয়ে বহু দিনই জল ঘোলা হয়েছিল। নির্বাচনের পর বিজেপির বিরুদ্ধে অভিযোগ ওঠে ব্যালট পেপার বিকৃত করার। চণ্ডীগড় পুরসভার মোট আসন সংখ্যা হল ২৮। ৩০ জানুয়ারি ওই ভোটে দেখা যায় বিজেপি পেয়েছে ১৬ ও আপ- কংগ্রেস জোট পায়েছে ১২ টি আসন। আপ অভিযোগ করে ওই ভোটে প্রিসাইডিং তথা রিটার্নিং অফিসার অনিল মসিহ ৮ টি ভোট যা জোটের পক্ষে ছিল তা বিকৃত করেছে। বোর্ডের দখল নিয়েছিল বিজেপি। এরপরেই সুপ্রিম কোর্টের দারস্ত হয় আপ- কংগ্রেস জোট। সোম ও মঙ্গলবার পরপর ২ দিন শীর্ষ আদালতের প্রধান বিচারপতি ডি ওয়াই চন্দ্রচূড়ের বেঞ্চ জানিয়ে দেয় ওই বাতিল হওয়া ৮ টি ভোট বৈধ। ফলে, বোর্ড গঠনের অধিকার আপ- কংগ্রেস জোটেরই। আর তাতেই তৈরি হল শীর্ষ কোর্টের এক নয়া ইতিহাস। কারন, এতাবৎ কাল পর্যন্ত সুপ্রিম কোর্টও কোনও পুরসভা নিয়ে এ ধরনের রায় দেয়নি।

Advertisement of Hill 2 Ocean

অবশেষে সন্দেশখালিতে লাগানো হলো সিসিটিভি

সুপ্রিম কোর্ট মামলার শুরুতেই ওই মেয়র নির্বাচনের সমস্ত তথ্য ভিডিও ফুটেজ ও ব্যালট পেপার কোর্টে জমা দিতে নির্দেশ দেয়। সেই মতো সমস্থ নথি ও ব্যালট পেপার আদালতে জমা দেওয়া হয়। এরপরেই প্রধান বিচারপতি-সহ অন্যান্য বিচারপতিরা দেখেন অনিল মসিহ অন্যায়ভাবে ব্যালট পেপারে লিখছেন ও তা বাতিল করছেন। এরপরেই আপের মেয়র প্রার্থী কুলদীপকে জয়ী ঘোষণা করে তিন বিচারপতির বেঞ্চ। ৩০ জানুয়ারি ভোটে কারচুপির পরেই কেঁদে ফেলেছিলেন কুলদীপ। আর মঙ্গলবার জয়ের আনন্দে সবাই তাকে মিষ্টি খাইয়েছেন। মামলার রায় বেরোনোর পরেই বিজেপির আইনজীবী চণ্ডীগড় পুরসভায় পুনঃ নির্বাচনের দাবি জানান। কিন্তু পত্রপাঠ সেই দাবি খারিজ করেন বিচারপতিরা। তারা জানিয়ে দেন, কোর্টের দায়িত্বের মধ্যে পড়ে নির্বাচনী গণতন্ত্র। যেনও কিছুতেই বাধা প্রাপ্ত না হয়। কোর্টের স্পষ্ট ধারনা হয়ে যায় যে, উদ্দেশ্য প্রণোদিত ভাবে মসিহ ওই ব্যালট বিকৃত করেছিল। কারন তাকে ব্যালট পেপারে মার্ক কোরতে দেখা গিয়েছিল ভিডিও ফুটেজে। ইভিএম নিউজ 

বিশ্ব জুড়ে

গুরুত্বপূর্ণ খবর

বিশ্ব জুড়ে

গুরুত্বপূর্ণ খবর