Enforcement Directorate is active again in the ration corruption case

ব্যুরো নিউজ,১৩ ফেব্রুয়ারি: আজ সকাল থেকেই রেশন দুর্নীতি মামলায় একাধিক জায়গায় চলছে এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেটের তল্লাশি। সূত্রের খবর অনুযায়ী, শঙ্কর আঢ্যের পরিবার সূত্রের পাওয়া বনগাঁর বাসিন্দা বিশ্বজিৎ দাসের সল্টলেকের বাড়িতে হানা দিয়েছে ইডির আধিকারিকেরা।

সন্দেশখালি ঘটনার প্রতিবাদে বিজেপি যুব মোর্চার বিক্ষোভ

মঙ্গলবার সকাল ৭ টা নাগাদ বিশ্বজিৎ দাসের বাড়িতে হানা দেয় ইডি। এছাড়াও বন্দর, বাগুইআটির একাধিক জায়গায় একসাথে চলছে ইডির তল্লাশি। গোটা এলাকা নিরাপত্তার চাদরে মুড়ে ফেলেছে কেন্দ্রীয় বাহিনীর জওয়ানেরা। উল্লেখ্য, গতবছর রেশন দুর্নীতির তদন্ত করতে গিয়ে বাকিবুরের নাম উঠে আসে ইডির আধিকারিকদের হাতে। তাকে গ্রেফতার করা হলে সামনে আসে প্রাক্তন খাদ্যমন্ত্রী তথা বর্তমান বনমন্ত্রী জ্যোতিপ্রিয় মল্লিকের নাম।

Enforcement Directorate Raid

তদন্ত এগোনোর সাথে সাথে খুলতে থাকে দুর্নীতির জট। এরপর জ্যোতিপ্রিয় মল্লিকের গ্রেফতারির পর একে একে উঠে আসে আরও দুই তৃণমূল নেতা শংকর আঢ্য ও শেখ শাহজাহানের নাম। তবে, এখনো পর্যন্ত শংকর আঢ্যকে গ্রেফতার করা গেলেও, ফেরার শেখ শাহজাহান। শংকর আঢ্য এখন ইডি হেফাজতে রয়েছে।

রেশন দুর্নীতির অভিযোগে একাধিক জায়গায় ইডির হানা 

শেখ শাহজাহানের বিরুদ্ধে ইডির তরফে জারি করা হয়েছে লুক আউট নোটিশ। দফায় দফায় জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে শঙ্কর আঢ্য ও তার পরিবারের সদস্যদের। সেখান থেকেই এবার উঠে এসেছে বিশ্বজিৎ দাসের নাম। শঙ্কর আঢ্যর নামে অভিযোগ ছিল, মধ্যপ্রাচ্য থেকে বাংলাদেশ হয়ে যে সোনার বিস্কুট এসে উঃ ২৪ পরগনার বনগাঁ সহ আশেপাশের এলাকায় পৌঁছাত, সেই বিষয়টা পুরোটাই সে দেখাশোনা করতো। এই পাচারের কাজে শঙ্করের উঠে আসে শঙ্করের এক আত্মীয়ের নামও। আজ সেইসব সূত্র ধরেই সকাল থেকে তদন্তে নেমেছে এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেটের আধিকারিকেরা। ইভিএম নিউজ

বিশ্ব জুড়ে

গুরুত্বপূর্ণ খবর

বিশ্ব জুড়ে

গুরুত্বপূর্ণ খবর