বিশ্ব জুড়ে

গুরুত্বপূর্ণ খবর

veg recipe

চিকেন, ডিম সবই বারন্ত? নিরামিষের দিনেও এই রেসিপি করবে কামাল! ডালেই ফিরবে স্বাস্থ্যের হাল

ব্যুরো নিউজ, ২১ জুন: বাচ্চারা ডিম, চিকেন ছাড়া কিছুই খেতে চায় না? তাই নিরামিশের দিন গুলতে কি দিয়ে বাচ্চার পুষ্টির খাটতি মেটাবেন? বাচ্চাকে কিই বা খাওয়াবেন তা নিয়ে মাথায় হাত? তবে আর চিন্তা নেও এই দালের রেসিপিই করবে বাজিমাত। আর খাবারে থাকবে ভরপুর প্রোটিন। যা আপনার স্বাদ আর স্বাস্থ্য দুয়েরই রাখবে খেয়াল। চুলের যত্নে বিয়ারের কামাল! ম্যজিকের মত দূর হবে হাজার সমস্যা! অনেক সময় বাড়িতে চিকেন, ডিম কিছু না থাকলে সন্ধ্যা বা সকালের টিফিনে কি খাবেন তা নিয়ে চিন্তা? আজ আপনাদের বলব ডালের টেস্টি কিছু রেসিপি। মুগ ডাল চাট: অঙ্কুরিত গোটা মুগ ডালের সঙ্গে পেঁয়াজ, কাঁচালঙ্কা, শসা, ধনেপাতা, টম্যাটো, লেবুর রস, ভাজা জিরের গুঁড়ো, চাটমশলা মিশিয়ে ডালের এই চাট বানিয়েও নিতে পারেন। আরও একটু মুখরোচক করতে চাইলে উপর থেকে ছড়িয়ে দিতে পারেন ঝুরিভাজা। সন্ধ্যাবেলা হেলদি এই চাট  পেট ভরাবে। মুগডালের পরোটা: মুগডাল আধা সেদ্ধ করে নিন। জল ঝরিয়ে ডালে নুন, হলুদ, লঙ্কা গুঁড়ো, হলুদ গুঁড়ো আর বেসন মিশিয়ে একটি মণ্ড তৈরি করে নিন। চাইলে ভাল করে চপ করা সব্জিও দিয়ে দিতে পারেন। আপনার পছন্দ মত সব্জি দিতে পারেন। এ বার মণ্ডগুলি পরোটার আকারে গড়ে নিয়ে ভেজে নিলেই তৈরি ডালের পরোটা। সস্ কিংবা ধনেপাতার চাটনির সঙ্গে জমে যাবে গরম গরম এই ডালের পরোটা। মুগডালের কাটলেট: মুগডাল খানিকটা জলে কিছুক্ষণ ভিজিয়ে রাখুন। এবার সেটি বেটে নিন। মিক্সিতে খুরিয়েও নিতে পারেন। এতে পেঁয়াজ, কাঁচালঙ্কা, ধনেপাতা, টম্যাটো, হলুদ গুঁড়ো, লঙ্কা গুঁড়ো, চাটমশলা দিয়ে কাটলের আকারে গড়ে নিন। এবার তেলে ভেজে নিলেই তৈরি মুগডালের কাটলেট।

আরো পড়ুন »
Curry Recipe

একঘেঁয়ে আলু-পটলের তরকারি খেয়ে মুখে আর ভালো লাগছে না! এইভাবে একবার আলু-পটল বানিয়ে দেখুন

শর্মিলা চন্দ্র, ২০ জুন : গরমের দিনে আলু, পটল, ঢ্যাড়সই বাঙালিদের পাতে বেশি থাকে। গরমের দিনে অনেক বাড়িতেই আলু-পটলের তরকারি করা হয়। আলু-পটল দিয়ে নানা রকম রেসিপি হয়। আলু, পটল স্বাস্থ্যের জন্য বেশ উপকারী বলা যায়। তবে একঘেঁয়ে পটলের তরকারি খেয়ে যদি একটু মুখের স্বাদ বদল করতে চান তাহলে পটলের তরকারিতে দিন এই কয়েকটি মশলা। এই পদ্ধতিতে আলু, পটলের তরকারি করলে মুখে লেগে থাকবে। বাড়িতে কোনও অতিথি এলেও এই ভাবে আলু-পটলের তরকারি বানিয়ে দিয়ে পারেন। ঘুরে আসি: কালিম্পংয়ের ছোট্ট গ্রাম সামথার উপকরণ- আলু, পটল, টমেটো সরষের তেল জিরে বাটা, আদা বাটা, কাঁচা লঙ্কা বাটা, লঙ্কা গুড়ো, হলুদ গুড়ো, ঘি, স্বাদ মতো নুন, গরম মশলার গুড়ো। পদ্ধতি- আলু, পটলের এই তরকারি বানাতে গেলে প্রথমে আলু, পটল কেটে নিতে হবে। এরপর গ্যাসে কড়াই বসিয়ে সরষের তেল গরম হতে দিন। তেল গরম হলে আলু, পটল ভেজে তুলে নিন। এবার ওই তেলে আদা বাটা, জিরে বাটা, লঙ্কা বাটা, হলুদ গুড়ো, লঙ্কা গুড়ো, কুচো করে কেটে রাখা টমেটো দিয়ে কষিয়ে নিন। এরপর এতে ভেজে তুলে রাখা আলু, পটল দিয়ে দিন। এরপর স্বাদমতো নুন দিন। এরপর হালকা জল দিয়ে ঢেকে দিয়ে অল্প আঁচে রান্ন করুন। কিছুক্ষণ রান্না করার পর আলু সেদ্ধ হয়ে গেলে তৈরি আলু, পটলের তরকারি রেডি। এরপর একটু ঘি, গরম মশলা দিয়ে একটু ঢেকে রেখে কিছুক্ষণ পর নামিয়ে নিন। এরপর গরম গরম ভাত বা রুটির সঙ্গে পরিবেশন করুন।

আরো পড়ুন »
recipe

বিকেলের টিফিনে বানিয়ে ফেলুন গরম গরম মাছের ডিমের বড়া

 শর্মিলা চন্দ্র, ১৮ জুন : মাছ তো খান, কিন্ত মাছের ডিম দিয়ে যে সুস্বাদু রেসিপি তৈরি করা যায় সেটা কি জানেন? মাছের ডিমের বড়া কী কখনও ট্রাই করেছেন। এটা খেদে যেমন সুস্বাদু তেমন বানানোও বেশ সহজ। বিকেলের টিফিনের জন্য বানাতে পারেন অথবা গরম ভাতের সঙ্গেও খেতে পারেন। মন্দ লাগবে না। চলুন দেখে নেওয়া যাক কীভাবে বানাবেন মাছের ডিমের বড়া। ঘরোয়া উপায়ে কুনুইয়ের কালচে ভাব দূর করুন গরম গরম ভাতের সঙ্গেও মন্দ লাগবে না উপকরণ- ২০০ থেকে ২৫০ মাছের ডিম, পেঁয়াজ কুচি, লঙ্কার গুঁড়ো, ভাজা জিরের গুড়ো, ধনের গুড়ো, স্বাদ মতো নুন, লঙ্কা কুচি, আদা বাটা, রসুন বাটা, লেবুর রস, ধনেপাতা কুচি। পদ্ধতি- মাছের ডিমের বড়া বানানোর জন্য প্রথমে মাছের ডিম ভালোভাবে ধুয়ে ডিমের ওপরের পাতলা আবরণটি ফেলে দিন। এরপর ভালোভাবে মেখে নিতে হবে। মাছের ডিম ছাড়া বাকি সব উপকরণ একসঙ্গে করে ভালোভাবে মেখে মাছের ডিম ও কিছুটা ময়দা দিয়ে আবারও মেখে নিন। বড়ার ডো খুব বেশি পাতলা অথবা শক্ত হলে চলবে না। ডিমের মিশ্রণ হাত দিয়ে ধরে গরম তেলে দেওয়া যাবে এমন শক্ত করতে হবে। এরপর গ্যাসে প্যান বসিয়ে তেল গরম হতে দিন। বড়া যাতে অর্ধেকটা তেলে ডুবে থাকে এমনভাবে মেপে তেল দিন। তেল গরম হলে মিশ্রণটি গোল গোল করে পাকিয়ে নিয়ে গরম তেলে দিন। কিছুক্ষণ পর পর উল্টে দুই পাশেই সমানভাবে গোল্ডেন ব্রাউন কালার করে ভেজে তুলতে হবে। এইভাবেই তৈরি হয়ে যাবে মাছের ডিমের বড়া। একটা প্লেটে সাজিয়ে সসের সঙ্গে গরম গরম পরিবেশন করুন। https://youtu.be/h23RlHmMHN8

আরো পড়ুন »
Watermelon Recipe

গরম থেকে স্বস্তি পেতে বাড়িতেই বানান তরমুজ কোন আইসক্রিম

ব্যুরো নিউজ, ১৭ জুন: গরমের সময় কাঁচা অথবা পাকা আমের আইসক্রিম নিশ্চয়ই খেয়েছেন। কিন্তু কখনও কী তরমুজ দিয়ে আইসক্রিম বানিয়ে খেয়েছেন? গরমের দিনে আইসক্রিম কিন্তু স্বস্তিদায়ক একটি খাবার বলা যায়। আর সেটা যদি বাড়িতে বানানো হয়, তাহলে তো কোনও কথাই নেই। বাড়িতে বানিয়ে আইসক্রিম খাওয়ার মজাটাই কিন্তু আলাদা। তাহলে আর দেরি কেন, দেখে নিনি কীভাবে খুব সহজেই বাড়িতে বানিয়ে ফেলতে পারবেন তরমুজের কোন আইসক্রিম। ঘরে বসেই পান মুখে গোল্ডেন গ্লো, রইল টিপস বাড়িতে একবার ট্রাই করুন মন্দ লাগবে না উপকরণ- তরমুজ ১ কাপ, চিনি ১ কাপ, ঘন দুধ দেড় কাপ, ওয়েফার কোন বিস্কুট ৬টি, ক্রিম ১ কাপ, ডিমের কুসুম ২টি, কর্নফ্লাওয়ার ১ টেবিল চামচ, কয়েক ফোঁটা খাওয়ার লাল রং। পদ্ধতি- তরমুজ কোন আইসক্রিম বানানোর জন্য প্রথমে ব্লেন্ডারে তরমুজ ব্লেন্ড করে নিন। এরপর ভালো করে ছেঁকে নিন। তরমুজের রসের সঙ্গে চিনি দিয়ে জ্বাল দিন। এরপর দুধের সঙ্গে কর্নফ্লাওয়ার, ডিমের কুসুম ভালো করে গুলিয়ে নিন। তরমুজের রসের মধ্যে দিয়ে ভালো করে নাড়তে থাকুন। ঘন হয়ে এলে গ্যাস বন্ধ করে দিন। খাওয়ার লাল রং মিশিয়ে ঠান্ডা করুন। অন্য পাত্রে ক্রিম বিট করে তরমুজ দুধের মিশ্রণে ঢেলে দিন। ২-৩ মিনিট বিট করে ডিপ ফ্রিজে রেখে দিন। আইসক্রিম জমে গেলে ওয়েফার কোন বিস্কুটের ভেতর ঢুকিয়ে পরিবেশন করুন। একবার বানিয়ে খেয়ে দেখুন মন্দ লাগবে না।

আরো পড়ুন »
Kitchen Tips

শুধুমাত্র রান্নার কাজেই নয়, লবঙ্গর আছে আরো অনেক গুণ

ব্যুরো নিউজ, ১৫ জুন : রান্নার উপকরণ হিসেবে লবঙ্গ ব্যবহার হয়ে থাকলেও, ত্বক, গলা ব্যথা, মাথাব্যথা, গলা খুশখুশ সহ একাধিক সমস্যা সমাধানে লবঙ্গর জুড়ি মেলা ভার। ভাবছেন তো এই সমস্যার সমাধানে লবঙ্গ কিভাবে কাজ করে। তাহলে চলুন দেখে নেওয়া যাক লবঙ্গর বিশেষ গুণগুলি। গরম থেকে রেহাই পেতে বারবার সাবান দিয়ে স্নান করছেন? অজান্তেই নিজের ত্বকের ক্ষতি করছেন না তো? গলা ব্যথা থেকে মাথা ব্যথা সবেতেই কাজ দেয় লবঙ্গ ১) গরমের দিনে অনেকেরই মাথাব্যথা হয়ে থাকে। মাথা ব্যাথা কমাতে বেশিরভাগ মানুষই ওষুধের সাহায্য নেন। কিন্তু আপনি যদি অন্য তেলের সঙ্গে লবঙ্গ তেল মিশিয়ে মাথায় ম্যাসাজ করেন তাহলে আপনার মাথাব্যথা এক নিমেষে দূর হয়ে যাবে। ২) গরমের সময় অনেকেরই একটু কিছু খেলে বুক জ্বালা করে, হজমের সমস্যা দেখা দেয়। অজম ঠিকমত না হওয়ায় অনেকের ঘুমের ব্যাঘাত ঘটে। তবে আপনি যদি খালি পেটে একটি লবঙ্গ মুখে রাখেন তাহলে হজমের সমস্যা থেকে রেহাই মিলবে। বাচ্চাকে পড়াতে বসিয়ে এই কাজ গুলো কখনোই করবেন না! নয়তো বিপদ বাড়বে আপনার শিশুরই! ৩) ত্বক উজ্জ্বল রাখতে লবঙ্গ কিন্তু বিশেষ সহায়ক। গরমের দিনে ত্বক রোদে পুড়ে কালচে ভাব দেখা দেয়। ত্বকের সুরক্ষায় লবঙ্গ কিন্তু বেশ উপকারী। লবঙ্গতে অ্যান্টি-এজিং বৈশিষ্ট্য থাকায় ত্বককে সূর্যরশ্মির হাত থেকে বাঁচায়। ৪) লবঙ্গ রক্তের শর্করার মাত্রা অনেকটাই কমিয়ে দেয়। কিভাবে ডায়াবেটিস রোগীরা লবঙ্গ খাওয়ার আগে অবশ্যই ডাক্তারের পরামর্শ নেই। মনে রাখবেন লবঙ্গ অতিরিক্ত পরিমাণ খেলে কিন্তু শরীর গরম হয়ে যায়। তাই গরমের দিনে অতিরিক্ত লবঙ্গ না খাওয়াই শ্রেয়। ৫) মশার কামড়ে অতিষ্ঠ? লবঙ্গ তেল কিন্তু আপনাকে মশার হাত থেকে বাঁচাতে পারে। শরীরের খোলা জায়গাগুলিতে লবঙ্গ তেল মেখে রাখুন মশা আপনার ধারেও ঘেঁষবে না। লবঙ্গতে থাকা ইউজেনল যৌগ মশাকে আপনার থেকে দূরে রাখবে।

আরো পড়ুন »
Mango Recipe

গরমের দিনে প্রাণ জোড়াবে পাকা আমের এই রেসিপি

শর্মিলা চন্দ্র, ১৫ জুন : যে হারে গরম বাড়ছে তাতে প্রাণ জুড়ানোর একমাত্র উপায় ঠান্ডা পানিও। তবে এই গরমের সময় পাকা আম খাওয়ার কিন্তু একটা আলাদাই মজা রয়েছে। তবে আমি যে শুধু কেটেই খাওয়া যায় তা কিন্তু নয়। পাকা আম দিয়ে কিন্তু আপনি খুব সহজেই বানিয়ে নিতে পারেন ম্যাঙ্গো স্মুদি। গরমের দিনে এই পানিওর কিন্তু জুড়ি মেলা ভার। চলুন দেখে নেওয়া যাক কিভাবে সহজে বাড়িতেই বানিয়ে ফেলতে পারবেন ম্যাঙ্গো স্মুদি। এবার কি বিয়ের পিঁড়িতে বসতে চলেছেন উরফি? একবার খেলে মুখে লেগে থাকবে এই স্বাদ উপকরণ- একটি পাকা আম, একটি কলা, এক কাপ দুধ, হাফ কাপ দই, দুটো চেরি ছোট করে কাটা, অল্প চিনি। পদ্ধতি- প্রথমে আমের খোসা ছাড়িয়ে নিতে হবে। আম থেকে আঁটিও বাদ দিতে হবে। এবার একটি কলা ছোট ছোট করে কেটে নিন। কলা কাটার আগে কিছুক্ষণ ফ্রিজে রাখলে বেশ ভাল স্বাদ হবে স্মুদির। হাফ কাপ দই একটু ভাল করে ফেটিয়ে নিতে হবে। এবার একটি মিক্সার বা ব্লেন্ডারে প্রথমে আম, তার পর কলা, দুধ, চিনি ও দই মিশিয়ে দিতে হবে। চাইলে অল্প ফ্রেশ ক্রিম দিয়েই ব্লেন্ড করতে পারেন এই সবকটি উপাদান। সবকটি উপাদান ভাল করে ব্লেন্ড করে নিন। এবার একটি গ্লাসের মধ্যে আমের স্মুদি ঢেলে নিন। ওই স্মুদির উপর দিয়ে ছড়িয়ে দিন অল্প চেরি। তৈরি আপনার ম্যাঙ্গো স্মুদি। এই মিশ্রণটি কিছুক্ষণ ফ্রিজে রেখে ঠান্ডা করে খেতে পারেন। প্রাণ জুড়িয়ে যাবে।

আরো পড়ুন »
SHOL FISH RECIPE

ইলিশ, ভেটকি তো অনেক হল এবার জামাইষষ্ঠীতে বানিয়ে ফেলুন শোল মাছের বিলাসিনী

লাবনী চৌধুরী, ১২ জুন: ‘শোল মাছের বিলাসিনী’ নামটা শুনলেই মনে হয় কি যেনও কঠিন রান্না। কতই না উপকরণ লাগবে। বানাতেও বুঝি ঢের ঝঞ্ঝাট। তবে সে সব কিছুই নয়। নাম শুনতে এমন মনে হলেও রান্নাটা কিন্তু অত্যন্ত সহজ। লাগবেও খুব অল্প কিছু উপকরণ। আর অল্প সময়েই ঝটপট বানিয়ে ফেলুন শোল মাছের বিলাসিনী। ঠোঁট কালচে হয়ে যাচ্ছে? পিঙ্ক ঠোঁট পাবেন গ্লিসারিনের ব্যবহারেই প্রথমে মাছটি কেটে ধুয়ে পরিষ্কার করে নিন। এবার পরিমাণ মত নুন ও হলুদ মাখিয়ে রাখুন মাছে। এরপর পেয়াজ ও রসুন বেতে নিন। অন্য দিকে একটি পাত্রে কিছুটা দুধ নিতে হবে। এবার দুধেই ১ চামচ সরসের তেল মিশিয়ে নিন। এবার গরম তেলে মাছের পিসগুলো লাল লাল করে ভেজে নিন। এবার রান্নার ফোরন দেওয়ার জন্য তেলে কয়েকটা শুকনো লঙ্কা ও তেজ পাতা দিয়ে দিন। সঙ্গে দিন কয়েকটা গোটা গরম মশলা। এবার আগে থেকে বেটে রাখা পেয়াজ- রসুন বাটা দিয়ে দিন। এবার একে একে মশলা দিন। যেমন হলুদ গুড়, লঙ্কা গুড়, স্বাদ মত নুন ও চিনি দিয়ে নাড়তে থাকুন। এবার মশলাটা ভালো ভাবে কষিয়ে নিতে হবে। মশলা কষে গেলে এবার সরসের তেল দেওয়া দুধটা ঢেলে দিন। ফুটে উঠলে একে একে ভাজা মাছ গুলো কড়াইতে দিয়ে দিন। এবার একটু ফুটিয়ে নিলেই রেডি। গরম গরম ভাতে পরিবেশন করুন শোল মাছের বিলাসিনী।

আরো পড়ুন »
HINGER KOCHURI RECIPE

গরমে পেট ঠাণ্ডা রাখতে সকালে বা সন্ধ্যের টিফিনে হিংয়ের কচুরির কামাল

লাবনী চৌধুরী, ১১ জুন : সকালের জলখাবার হোক বা সন্ধ্যের টিফিন, ভাজা- ভুজি খেতে কার না ভাললাগে। আর বাড়িতে যদি থাকে বাচ্চা-কাচ্চা তবে তো কথাই নেই। তাই সকাল হোক বা সন্ধ্যে এই হিংয়ের কচুরিই করবে বাজিমাত। চিকেন কষা, চিলি চিকেন খেয়ে বোর? এবার মোগলাই চিকেন মহারানিতেই করুন বাজিমাত!  গরমে শরীর ঠাণ্ডা রাখতে হিং খুবই উপকারি। তাই অনেকেই ডালে বা তরকারিতে হিং খেতে পছন্দ করেন। তবে আজকালকার বাচ্চারা হিং-এর নাম শুনলেই ‘পালাই পালাই’… তাই এই কচুরিই একসাথে যেমন ভাজাভুজির চাহিদা মেটাবে, তেমনই শরীরও রাখবে ঠাণ্ডা। উপকরণ- ময়দা, নুন, চিনি, সাদা তেল, উষ্ণ গরম জল, টমেটো, গোটা জিরে, হলুদ গুঁড়ো, লঙ্কা গুঁড়ো, ধনেগুঁড়ো, কাঁচা লঙ্কা, শুকনো লঙ্কা, হিং ও আলু। পদ্ধতি- প্রথমে একটা বড় পাত্রে পরিমাণ মত ময়দা নিয়ে নিন। সেটাতে স্বাদমত নুন ও হাফ চামচ চিনি ও একটু সাদা তেল দিয়ে মিশিয়ে নিন। এবার উষ্ণ গরম জল দিয়ে ময়দাটা মেখে ৩০-৪৫ মিনিটের জন্য রেখে দিন। এরপর কড়াই গরম করে তাতে তেল দিয়ে দিন। তেল গরম হয়ে গেলে তাতে গোটা জিরে, শুকনো লঙ্কা ও হিং দিয়ে নাড়াচাড়া করুন। এরপর অল্প হলুদ, লঙ্কা গুঁড়ো, ধনেগুঁড়ো ও সামান্য নুন দিয়ে নেড়ে নিন। এবার এতে ১-২ টো টমেটো কুচি ও ২-৩ টে কাঁচা লঙ্কা চিরে দিন। মশলা কষে এলে সেদ্ধ করে রাখা আলুর টুকরোগুলি দিয়ে দিন। এবার মশলার সঙ্গে ভাল করে মিশিয়ে নিয়ে জল দিয়ে কড়াইটা ঢাকা দিয়ে দিন। ভালো মত ফুটে গেলে গরম মশলা দিয়ে নামিয়ে নিন। চাইলে ধনেপাতা কুচিও ছড়িয়ে দিতে পারেন। এবার আগে থেকে মেখে রাখা ময়দার লেচি কেটে নিন। এবার সেই লেচিতে হিং-এর মশলা অ্যাড করার পালা। কচুরির ভেতরের মশলার জন্য প্রথমে বড় একটা বাটিতে ছাতু নিয়ে নিতে হবে। এর মধ্যে এক চামচ হিং, স্বাদমতো নুন, ভাজা মশলার গুঁড়ো, হাফ চামচ চিনি দিয়ে মিশিয়ে নিন। এবার ময়দার লেচিতে হিং-এর পুর ভরে চারিদিক থেকে ভালোভাবে মুড়ে দিতে হবে। যাতে কোনও ভাবে ভেতরের মশলা বেড়িয়ে না যায়। এবার বেলে নিয়ে মরম তেলে ভেজে। আলুর দমের সঙ্গে গরম গরম পরিবেশন করুন হিংয়ের কচুরি।

আরো পড়ুন »
Moghlai Chicken Maharani

চিকেন কষা, চিলি চিকেন খেয়ে বোর? এবার মোগলাই চিকেন মহারানিতেই করুন বাজিমাত! 

লাবনী চৌধুরী, ৯ জুন : ছুটির দিনে বাঙালির মাংস ভাত না হলে ঠিক জমে নাকি? তবে রোজকার একঘেয়ামি চিকেন কষা, চিলি চিকেন খেতে খেতে বোর হয়ে গেছেন? তবে ট্রাই করুন চিকেন মহারানি। বাচ্চা থেকে বড় সকলেই খাবে আঙুল চেটে। কিংবা বাড়িতে অতিথি এসে থাকলেও মন জয় করতে বানিয়ে ফেলুন এই রেসিপি। গরমে প্রাণ জোরানো ম্যাঙ্গো পুডিং বানাতে পারেন বাড়িতেই উপকরণ- বড় কাটের চিকেন ১ কেজি, ১ কাপ দই, আদা- রসুন বাটা, পরিমাণ মত গল মরিচ গুড়ো ও গরম মশলা, অর্ধেক লেবুর রস, পরিমাণ মত নুন। পদ্ধতি- উপরে উল্লেখ করা উপকরণ গুলি দিয়ে মাংসটিকে ভালো করে ম্যারিনেট করে রেখেদিন অন্তত ৩০ মিনিট। অন্যদিকে একটা কড়াইতে নিয়ে নিন গোটা ধনে, গোটা সাদা জিরে, মৌরি, কয়েকটি গোটা এলাচ, জায় ফল ও জৈত্রি, কয়েকটি শুঁকন লঙ্কা।  এগুলো হাল্কা হিটে কিছুক্ষণ নেড়ে নিন কড়াইয়ে। মশলায় গল্ডেন রং এসে গেলে নামিয়ে নিয়ে গোটা মশলা গুলো গুড়ো করে নিন। রান্নার গ্রেভির জন্য কয়েকটা কাজু, খোলা ছাড়ানো বাদাম, কয়েকটা কাঁচা লঙ্কা, একটু জল দিয়ে ব্লেন্ড করে নিন। চাইলে চারমগজও নিতে পারেন। এবার একটা কড়াইতে পরিমাণ মত তেল নিয়ে নিন। তাতে দিয়ে দিন কেটে রাখা পেয়াজ। পেয়াজ হাল্কা লাল হয়ে এলে এতে আগে থেকে ম্যারিনেট করে রাখা চিকেনটা দিয়ে দিন। এবার হাই ফ্লেমে চিকেনটি কিচ্ছুক্ষণ রান্নার পর মিডিয়াম ফ্লেমে ঢাকা দিয়ে রান্না করুন। তারপর কাজু- বাদামের পেস্টটি অ্যাড করে নিন। এবার কিছুক্ষণ পর গ্রেভি থেকে তেল ছাড়তে শুরু করবে।  তখন গুড়ো করে রাখা মশলা পরিমাণ মত দিয়ে দিন। ভালো করে নাড়িয়ে নিয়ে, এতে কিছুটা ফ্রেস ক্রিম ও কস্তুরি মেথি মিশিয়ে নিন। এবার ভালো করে নাড়ে চেড়ে নামিয়ে নিন। যদি একটু ঝোল পছন্দ করেন তবে পরিমাণ মত জল দিয়ে আরও কিছুক্ষণ ফুটিয়ে নিতে পারেন। চাইলে ধনে পাতাও দিতে পারেন। এবার গরম গরম পরটা, নান বা তন্দু বা রুমালি রুটির সঙ্গে পরিবেশন করুন। পাট চেটে খাবে ছোট থেকে বড় সকলে।

আরো পড়ুন »
mango pudding recipe

গরমে প্রাণ জোরানো ম্যাঙ্গো পুডিং বানাতে পারেন বাড়িতেই

লাবনী চৌধুরী, ৯ জুন : গরমে ঠাণ্ডা খেতে কে না ভালবাসে। তা সে আইসক্রিম হোক বা সরবত। গরমে এসবের জুরি মেলা ভার। তবে আইসক্রিম, সরবত তো অনেক হল। এবার বাড়িতেই বানিয়ে ফেলতে পারেন মাঙ্গো পুডিং। বাড়িতেই বানিয়ে ফেলুন সুস্বাদু মিল্কশেক আমের সিজনে আমের সরবত আমের আইসক্রিম সকলেই পছন্দ করেন এমনকি বাড়িতে বানিয়েও থাকেন। তবে এবার আমের সিজনে শেষ হওয়ার আগে বানিয়ে ফেলুন ম্যাঙ্গো পুডিং। বাচ্চা থেকে বয়স্ক, এমনকি বাড়িতে আসা গেস্ট দের ঠাণ্ডা ঠাণ্ডাম্যাঙ্গো পুডিং সার্ভ করেই মন জিতে নিন। প্রথমেই আমের খোলা ছাড়িয়ে আমের পাল্প কেটে খানিকটা পিউরি বানিয়ে নিন। চাইলে আমের পিউরিটা ছেকে নিতে পারেন। এতে আমের মধ্যে আশ থাকলে তা বেড়িয়ে যাবে। এরপর ওই মিশ্রণটিতে পরিমাণ মত চিনি মিশিয়ে নিন। ১ চামচ আগার আগার পাউডার। এবার সবকিছু ভালো মত মিশিয়ে নিন। মিশ্রণটি খুব বেশি খন হয়ে গেলে অল্প করে জল দিয়ে মিশিয়ে নিতে পারেন। এবার মিডিয়াম হিটে রেখে ওই মিশ্রণটি ভালোভাবে জাল দিতে হবে যতক্ষণ না একটু ঘন হয়ে আসে। তবে মিশ্রণটি জাল দেওয়ার সময় বার বার নাড়তে হবে। নয়তো মিশ্রণটি পাত্রতে লেগে যেতে পারে। এবার ওই মিশ্রণটিকে পাত্রে ঢেলে ঠাণ্ডা করে পছন্দের শেপ দিয়ে জেলো কেটে নিন। এবার পুডিংয়ের জন্য একটা কড়াইয়ে দুধ নিয়ে নিন। তাতে পরিমাণ মত চিনি দিয়ে দিন। মিশিয়ে নিন ১ চামচ আগার আগার পাউডার। এবার ৩-৪ মিনিট দুধটা জাল দিয়ে নামিয়ে নিন। এবার যেই পাত্রতে পুডিং জমাবেন সেটায় দুধটা ঢেলে নিন। ওই পাত্রতেই দুধের মধ্যে আমের কেটে রাখা জেলো গুলো মিশিয়ে নিন। এবার এটাকে ১০ মিনিট ছেড়ে দিন ঠাণ্ডা করার জন্য। তারপর ফ্রিজে রেখে দিন অন্তত ৩০ মিনিট। ব্যাস ৩০ মিনিট পর আপনার ম্যাঙ্গো পুডিং রেডি। এবার পছন্দ মত আকারে কেটে নিয়ে সার্ভ করুন।

আরো পড়ুন »

বিশ্ব জুড়ে

গুরুত্বপূর্ণ খবর

বিশ্ব জুড়ে

গুরুত্বপূর্ণ খবর

ঠিকানা