বিশ্ব জুড়ে

গুরুত্বপূর্ণ খবর

College Admission aplication rule

পোর্টালে করা যাবে কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির আবেদন, নয়া পদ্ধতি চালু করছে শিক্ষাদফতর

ব্যুরো নিউজ, ১৯ জুন : পোর্টালে করা যাবে কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির আবেদন, নয়া পদ্ধতি চালু করছে শিক্ষাদফতর। অবশেষে ED দফতরে হাজিরা দিলেন ঋতুপর্ণা, চলছে জিজ্ঞাসাবাদ কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির প্রক্রিয়াতেও একাধিকবার অস্বচ্ছতার অভিযোগ উঠেছে। যা নিয়েও একাধিকবার জলঘোলা হয়েছে। আর এবার কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির প্রক্রিয়াতে স্বচ্ছতা আনার লক্ষ্যে কেন্দ্রীয় অনলাইন পোর্টাল চালু করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে রাজ্য উচ্চশিক্ষা দফতর। আগামী ২৪ শে জুন থেকে এই নতুন পদ্ধতি চালু করবে শিক্ষাদফতর। বুধবার এমনটাই জানিয়েছে শিক্ষামন্ত্রী ব্রাত্য বসু। এই পোর্টালে কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির জন্য আবেদন করা যাবে। রাজ্যের ১৬টি বিশ্ববিদ্যালয়, ৪৬১টি কলেজে স্নাতক স্তরে ৭২১৭টি কোর্সে ভর্তির জন্য দেশের যে কোনও প্রান্ত থেকে এই পোর্টালের মাধ্যমে অনলাইনে আবেদন করা যাবে। মক্কায় ৫৫০ জন হজ যাত্রীর মৃত্যু! প্রশাসনের তরফে সতর্ক বার্তা তবে এই পোর্টালের মাধ্যমে যেই সকল কলেজে আবেদন করা যাবেনা সেগুলি হল- যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়, প্রেসিডেন্সি বিশ্ববিদ্যালয়, স্বশাসিত কলেজ, সংখ্যালঘু কলেজ, বিএড, ফাইন আর্টস, পারফর্মিং আর্টস, ক্রাফ্টস, নৃত্য, সঙ্গীত কলেজের কোর্সে ভর্তির ক্ষেত্রে এই কেন্দ্রীয় অনলাইন পোর্টালের মাধ্যমে আবেদন করা যাবে না। এই পোর্টালে প্রথম পর্যায়ে ভর্তির আবেদনের শেষ তারিখ ৭ জুলাই।

আরো পড়ুন »
teach a child like this way

বাচ্চাকে পড়াতে বসিয়ে এই কাজ গুলো কখনোই করবেন না! নয়তো বিপদ বাড়বে আপনার শিশুরই!

ব্যুরো নিউজ, ১৫ জুন: সন্তানদের নিয়ে মা-বাবাদের চিন্তার অন্ত নেই। তা সে খুদে হোক বা একটু বড়, পড়াশোনা, খেলা-ধূলা, তাঁর সন্তানের সুদূর ভবিষ্যৎ এই সব চিন্তা যেনও তাঁদের কিছুতেই পিছু ছাড়েনা। আর তাই যত চাপ ওই ছোট্ট শিশুটির উপরেই। ছোট থেকেই মাথায় ঢুকিয়ে দেওয়া হয়, ভালো করে পড়াশোনা না করলে তাঁর কোনও ভবিষ্যৎ নেই। তাই ছোট্ট সন্তানটিকে পড়তে বসার জন্য কতই না চাপ দেওয়া হয়…। কিন্তু সাবধান! বাচ্চাদের পড়াতে বসিয়ে আমরা এমন অনেক ধরণের অনেক কাজ করি যা বাচ্চার মনে বড় রকমের প্রভাব ফেলতে পারে। তাই সেই রকম কোনও কাজ ভুলেও করা যাবে না। দুর্দান্ত ইন্টারভিউ দেওয়ার পরেও নেট রেজাল্ট ‘০’! মেনে চলুন এই টোটকা, সাফল্য আসবে হাতের মুঠোয় অনেক ক্ষেত্রেই দেখা যায়, পড়তে বসে বাচ্চা একটু এদিক ওদিক তাকালে বা বার বার খাতা বই ছেড়ে উঠলে কিংবা লিখতে গিয়ে রবার নিয়ে খেলা করলে আমরা ছোটদের বকাঝকা করি। কিন্তু ছোটদের ক্ষেত্রে এগুলো খুবই স্বাভাবিক বিষয়। তাই ছোট বাচ্চাদের পড়ানোর সময় সবার আগে আপনাকে ধৈর্য ধরতে হবে। অযথা বকাবকি করলে আপনার শিশুর মনে পড়াশোনা নিয়ে ভয় তৈরি হবে। পড়তে বসে বাচ্চারা একাধিক ভুল ত্রুটি করবে তবে আপনাকে এক্ষেত্রেও মেজাজ হারালে চলবে না। একবারের জায়গায় দুবার বলবেন, বোঝাবেন। তবু কোথায় যেনও রাগ না প্রকাশ পায়। বরং ভালোবেসে তার ভুলগুলো শুধরে দিন। এমন না হলে বাচ্চা কিছু জানতে চাওয়া বা শিখতে চাওয়ার ক্ষেত্রে আগ্রহ হারাবে। আর এতে আপনার শিশুরই বিপদ। কিছু পড়তে বা লিখতে দিয়ে আপনার শিশুকে খানিকটা সময়দিন। পাশে বসে সব সময় শাসন করলে চলবে না। পড়ানোর সময় বকাবকি বা শাসনেও যেন থাকে নিয়ন্ত্রণ। পড়ার একটি রুটিন করে দিন। কোনদিন, কখন কোন বিষয়টি পড়বে তার যেনও একটা চার্ট থাকে। অল্প সময়ের জন্য হলেও পড়াশোনার একটা রুটিন করা প্রয়োজন।

আরো পড়ুন »
income-tax-photo

চাকরির বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করলো আয়কর দপ্তর! দিতে হবে না পরীক্ষা, ইন্টারভিউ দিলেই চাকরি

ব্যুরো নিউজ, ১ মে: নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করলো আয়কর বিভাগ। সম্প্রতি আয়কর দপ্তর একটি বিজ্ঞপ্তি জারি করে স্পেশাল পাবলিক প্রসিকিউটর পদে নিয়োগের কথা জানিয়েছে। আপনি কি পাবলিক প্রসিকিউটর পদে আবেদন করতে চান? তাহলে আর দেরি কেনো? সুযোগ দিচ্ছে আয়কর দপ্তর। তবে এক্ষেত্রে অফলাইনে আবেদন করতে হবে চাকুরী প্রার্থীদের। পুরুষ, মহিলা উভয়েই এই পদে আবেদনের যোগ্য। বিস্তারিত জানতে পড়ুন এই প্রতিবেদন। নোটিশ নম্বর:- Pr. CCIT/MP/Tech/Special Public Prosecutors (SPPs)/2024-25 কবে নোটিশ প্রকাশ হয়েছে – ০৯/০৪/২০২৪। শূন্যপদের নাম:- স্পেশাল পাবলিক প্রসিকিউটর (SPP) শূন্যপদের সংখ্যা:- এক্ষেত্রে শূন্যপদ মাত্র ১টি। প্রয়োজনীয় যোগ্যতা:- আবেদনকারী প্রার্থীকে অবশ্যই অ্যাডভোকেট হতে হবে। সেক্ষেত্রে নূন্যতম ৭ বছর চাকরির অভিজ্ঞতা বাঞ্ছনীয়। নিয়োগ প্রক্রিয়া:- ইন্টারভিউয়ের মাধ্যমে এই নিয়োগ করা হবে। নিয়োগ স্থান:- ভোপালের আয়কর দফতর। কিভাবে আবেদন করবেন ? 1) অফলাইনে আবেদন করতে হবে প্রার্থীকে। 2) প্রথমে www.incometaxindia.gov.in ওয়েবসাইটে প্রবেশ করে আবেদন পত্রটি ডাউনলোড করুন। 3) তারপর আবেদন পত্রটি প্রিন্ট করিয়ে নিন। 4) ভালো করে ওই আবেদনপত্র ফিলাপ করুন। 5)সব প্রয়োজনীয় সমস্ত প্রয়োজনীয় নথিপত্র যেমন পরিচয়পত্র, বার্থ সার্টিফিকেট, শিক্ষাগত যোগ্যতার সার্টিফিকেট, জাতিগত শংসাপত্রের ফটোকপি, দুই কপি কালার পাসপোর্ট সাইজ ছবি। 6) সব নথি আবেদন পত্রের সঙ্গে যুক্ত করে খামে ভরে নির্দিষ্ট ঠিকানায় প্রেরণ করুন। কোন ঠিকানায় আবেদন পত্র পাঠাবেন:-O/o the Pr. Chief Commissioner of Income Tax, MP & CG, Bhopal বি দ্রঃ- ১০/০৫/২০২৪ তারিখ বিকেল ৫ টার মধ্যে আবেদন সম্পন্ন করতে হবে

আরো পড়ুন »
higher-secondary-syllabus-cheange

উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষার দিন মাইক্রোফোন ব্যবহারে নিষেধাজ্ঞা, বন্ধ থাকবে ফটোকপির দোকানও

ব্যুরো নিউজ, ১৫ ফেব্রুয়ারি: রাত পোহালেই শুরু ২০২৪ সালের উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষা। পরীক্ষাকে কেন্দ্র করে শেষ মুহূর্তে প্রশাসনিক প্রস্তুতিও তুঙ্গে। সুকান্তর উপর পুলিশি অত্যাচার | বিজেপির বিক্ষোভ-মিছিলে পুলিশের ‘অতি-সক্রিয়তা’ পরীক্ষা কেন্দ্রগুলিতেও শেষ মুহূর্তের প্রস্তুতি প্রায় সম্পন্ন। প্রশাসন সূত্রে জানা যায়, এ বছর পুরুলিয়া জেলায় পরীক্ষার্থীর সংখ্যা ৩৬ হাজার ৬৫৬ জন। যা গত বছর তুলনায় ১ হাজার ৭৩ জন বেশি। পরীক্ষার্থীদের মধ্যে এ বছর ছাত্র সংখ্যা ১৭ হাজার ৬২৫ জন এবং ছাত্রী সংখ্যা ১৯ হাজার ৩১ জন। জেলা জুড়ে মোট পরীক্ষা কেন্দ্র ৯২ টি। বিভিন্ন বছরের মত এবছরও পরীক্ষাকে কেন্দ্র করে কিছু নির্দেশিকা জারি করেছে পশ্চিমবঙ্গ উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা সংসদ। জারি একাধিক নিষেধাজ্ঞা পরীক্ষার্থীরা সকাল সাড়ে ৮ টা থেকে নির্দিষ্ট পরীক্ষা কেন্দ্রে ঢুকতে পারবে। ৯.৪৫ নাগাদ তাদের প্রশ্নপত্র দেওয়া হবে। পরীক্ষাকেন্দ্রের ভিতরে মোবাইল ফোন, কোনও বৈদ্যুতিন যোগাযোগের যন্ত্র, স্মার্টওয়াচের নিষেধাজ্ঞা থাকলেও পরীক্ষার্থীরা সাদা বোতলে জল, ট্রান্সপারেন্ট পরীক্ষার বোর্ড, পেন, পেনসিল এবং বিজ্ঞান বিভাগের পরীক্ষার্থীরা বিশেষ ধরনের ক্যালকুলেটর ব্যবহার করতে পারবে বলে নির্দেশিকায় জানানো হয়েছে। এবছর প্রত্যেক পরীক্ষাকেন্দ্রেই ক্লোজ সার্কিট ক্যামেরার মাধ্যমে নজরদারি ব্যবস্থা থাকছে। প্রশাসনের তরফে পরীক্ষাকেন্দ্রের ৫০ মিটার জুড়ে ১৪৪ ধারা জারি থাকবে। পরীক্ষার দিনগুলোতে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে মাইক্রোফোনের ব্যবহারে এবং ওইদিন গুলিতে ফটোকপির দোকানগুলি বন্ধ থাকবে বলে নিষেধাজ্ঞায় জানানো হয়েছে। প্রত্যেক পরীক্ষাকেন্দ্রে স্বাস্থ্য দফতরের বিশেষ শিবির থাকছে। এছাড়াও অসুস্থ পরীক্ষার্থীর জন্য ব্লক স্বাস্থ্যকেন্দ্রগুলিতে বিশেষ শয্যার ব্যবস্থা থাকবে। পরীক্ষার দিনগুলোতে যাতায়াত ব্যবস্থা সচল রাখতে জেলা প্রশাসন, ট্রাফিক পুলিশ ও পরিবহণ দফতর সক্রিয় থাকবে। প্রয়োজনে অতিরিক্ত যানবাহনের ব্যবস্থা থাকবে।

আরো পড়ুন »
920 Company Central Force in West Bengal in Lok Sabha election

প্রথমবার ১৩টি আঞ্চলিক ভাষায় কনস্টেবল পদের পরীক্ষা

ব্যুরো নিউজ, ১১ ফেব্রুয়ারি: সারা দেশে এই প্রথমবার সিআরপিএফ, বিএসএফ এবং সিআইএসএফ-এর পরীক্ষা হবে ১৩টি আঞ্চলিক ভাষায়। সারা দেশজুড়ে মোট ১২৮টি শহরে প্রায় ৪৮ লাখ প্রার্থী কনস্টেবল (সাধারণ দায়িত্ব) পরীক্ষায় অংশ নিচ্ছে। এক বিবৃতিতে এমনটাই জানিয়েছে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রালয়। পরীক্ষা হতে চলেছে ২০ ফেব্রুয়ারি থেকে ৭ মার্চের মধ্যে। সংসদে ‘নমো হ্যাট্রিক’ লেখা জাফরান হুডিতে সকলের মন কাড়লেন অনুরাগ ঠাকুর বাংলাতেও দেওয়া যাবে কনস্টেবলের পরীক্ষা এই কনস্টেবল তথা জেনারেল ডিউটির পরীক্ষাটি স্টাফ সিলেকশান কমিশনের এক অন্যতম পরীক্ষা। যা লাখ লাখ ভারতীয় যুব সম্প্রদায়কে আকৃষ্ট করে। হিন্দি এবং ইংরেজি ছাড়াও, এবার প্রশ্নপত্রগুলি আরও 13টি আঞ্চলিক ভাষায় ছাপানো হবে। অসমীয়া, বাংলা, গুজরাটি, মারাঠি, মালায়ালম, কন্নড়, তামিল, তেলেগু, ওড়িয়া, উর্দু, পাঞ্জাবি, মণিপুরি এবং কোঙ্কনি আঞ্চলিক ভাষায় ছাপা হবে প্রশ্নপত্র। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের এই সিদ্ধান্তের দরুন লক্ষাধিক যুব সম্প্রদায় এই বিশিষ্ট পরীক্ষাটি দিতে পারবে মাতৃ বা আঞ্ছলিক ভাষায়। যার ফলে তাদের পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হওয়ার সম্ভাবন আরও বেশি বাড়বে। যার ফলে সারাদেশে এই পরীক্ষাটির পরিধি বাড়বে এবং সবাই চাকরির সমান সুযোগ পাবে। এই ঐতিহাসিক সিদ্ধান্তটি নেওয়া হয়েছে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর উদ্যোগে। যা কিনা কেন্দ্রীয় সশস্ত্র পুলিশ বাহিনীতে স্থানীয় যুবকদের অংশগ্রহণ বাড়ানো এবং আঞ্চলিক ভাষার প্রসার বাড়াবে। কেন্দ্রীয় সরকারের এই উদ্যোগের ফলে, সারা দেশের যুবক-যুবতীরা তাদের মাতৃভাষায় এসএসসি দ্বারা পরিচালিত কেন্দ্রীয় সশস্ত্র পুলিশ বাহিনীতে কনস্টেবল (জিডি) পরীক্ষায় অংশ গ্রহণ করার এবং চাকরিতে ক্যারিয়ার গড়ার একটি সুবর্ণ সুযোগ পাবে। যা স্বরাষ্ট্র মন্ত্রালয়ের বিবৃতিতে জানানো হয়েছে। ইভিএম নিউজ

আরো পড়ুন »
Indian Army Recruitment 2024

ভারতীয় সেনা অগ্নিবীর নিয়োগ 2024-এর আবেদন শুরু | জেনে নিন কীভাবে করবেন আবেদন

লাবনী চৌধুরী, ৮ ফেব্রুয়ারি: ভারতীয় সেনাবাহিনী অগ্নিবীরদের পরবর্তী নিয়োগ সমাবেশের জন্য আজ, ৮ ফেব্রুয়ারি থেকে নিবন্ধন প্রক্রিয়া শুরু। ভাবছেন কী ভাবে আবেদন করবেন? তবে এই প্রতিবেদনটি আপনার জন্য। ইতিহাস গড়ল উত্তরাখণ্ড | পাশ হল অভিন্ন দেওয়ানি বিধি বিল প্রতিরক্ষা মন্ত্রক পূর্ববর্তী বছরে অগ্নিপথ স্কিম প্রকাশ করেছিল, যার অধীনে যোগ্য আবেদনকারীরা 4 বছরের জন্য ভারতীয় সেনাবাহিনীতে সেবা করার সুযোগ পান। প্রতি বছর, বিভিন্ন আর্মি রিক্রুটমেন্ট অফিস যোগ্য প্রার্থীদের নিয়োগের জন্য ভারতীয় সেনা অগ্নিপথ বিজ্ঞপ্তি 2024 পিডিএফ প্রকাশ করে। অনেক আবেদনকারী এই নিয়োগের জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছেন এবং ভারতীয় সেনা অগ্নিবীর নিয়োগ 2024 প্রকাশের জন্য অপেক্ষায় রয়েছেন। তবে আর অপেক্ষা নয়। আজ থেকেই আবেদন করা যাবে ভারতীয় সেনা অগ্নিবীর নিয়োগ 2024-এর জন্য। দশম, দ্বাদশ, আইটিআই পাস এবং স্নাতক প্রার্থীরা ভারতীয় সেনা অগ্নিবীর ভারতী 2024-এর জন্য আবেদন করতে পারেন। তবে এই নিয়োগের জন্য আপনাকে অবশ্যই শারীরিকভাবে ফিট হতে হবে। কারণ নির্বাচন পরীক্ষা লিখিত এবং শারীরিক পরীক্ষার মাধ্যমে করা হবে। আপনি ভারতীয় সেনা অগ্নিবীর-এ আবেদন করার জন্য যোগ্য হলে অফিসিয়াল ওয়েবসাইট @ joinindianarmy.nic.in-এ এসে নিজের আবেদন পত্রটি পূরণ করতে পারেন। ভারতীয় সেনাবাহিনী, ভারতীয় নৌবাহিনী, ভারতীয় বিমানবাহিনীর মতো সমস্ত শাখার জন্য প্রতিরক্ষা মন্ত্রক অগ্নিপথ স্কিম চালু করেছিল যার অধীনে নির্বাচিত আবেদনকারীরা 4 বছরের জন্য চাকরি করার সুযোগ পান। সারা ভারত থেকে লক্ষ লক্ষ আবেদনকারী এই স্কিমের জন্য ভালোভাবে প্রস্তুতি নেয় এবং তারপরে পরিষেবার জন্য নির্বাচনী পরীক্ষা দিয়ে থাকে। আসন্ন ভারতীয় সেনা অগ্নিবীর বিজ্ঞপ্তি 2024-এর অধীনে হাজার হাজার পদ রয়েছে। তবে, ভারতীয় সেনা অগ্নিবীর 2024 এর বিজ্ঞপ্তি অনুসারে অগ্নিবীরের বয়স সীমা 17.5 থেকে 23 বছরের মধ্যে হতে হবে। আমেরিকায় একের পর এক ভারতীয় পড়ুয়ার রহস্যমৃত্যু ভারতীয় সেনা অগ্নিবীর যোগ্যতা এমন একাধিক পদ রয়েছে যার জন্য ভারতীয় সেনা অগ্নিবীর যোগ্যতা 2024 আলাদা। অগ্নিবীর (সাধারণ দায়িত্ব) পদের জন্য আবেদনকারীদের রাজ্য বা কেন্দ্রীয় বোর্ড থেকে দশম শ্রেণী পাস করতে হবে। অগ্নিবীর (কারিগরি) পদের জন্য আপনাকে অবশ্যই পদার্থবিদ্যা, রসায়ন এবং গণিত-সহ 12 তম শ্রেণী পাস করতে হবে। অগ্নিবীর (ক্লার্ক) পদের জন্য আপনাকে যেকোনো বিষয়ে দ্বাদশ পাস হতে হবে। অগ্নিবীর (ট্রেডসম্যান) পদের জন্য আপনাকে যেকোনো বোর্ড থেকে অষ্টম বা দশম করতে হবে। ভারতীয় সেনা অগ্নিবীর বয়স সীমা পদের নাম ভারতীয় সেনা অগ্নিবীর বয়স সীমা 2024 অগ্নিবীর (সাধারণ দায়িত্ব) 17.5 থেকে 23 বছর অগ্নিবীর (প্রযুক্তিগত) 17.5 থেকে 23 বছর অগ্নিবীর (কেরানি) 17.5 থেকে 23 বছর অগ্নিবীর (ব্যবসায়ী) 17.5 থেকে 23 বছর আবেদনের জন্য প্রয়োজনীয় নথি অগ্নিবীর আবেদনপত্র 2024 অগ্নিপথ প্রকল্পে আগ্রহী প্রার্থীদের ভারতীয় সেনা অগ্নিবীর আবেদনপত্র 2024 @ joinindianarmy.nic.in পূরণ করতে হবে। আপনি অনলাইনে নিবন্ধন করতে পারেন এবং তারপরে লিখিত পরীক্ষার প্রস্তুতি শুরু করতে পারেন যার পরে চূড়ান্ত নির্বাচন করা হবে। অনলাইন ফর্মটি পূরণ করতে আপনার আধার কার্ড, 10 তম শংসাপত্র, স্বাক্ষর এবং ফটোগ্রাফের মতো মৌলিক নথিগুলির প্রয়োজন। স্ক্যান করা পাসপোর্ট সাইজের ছবি যা 10 Kb থেকে 20 Kb এর মধ্যে jpg ফরম্যাটে হতে হবে। স্বাক্ষরের স্ক্যান করা ছবি যা 5 Kb থেকে 10 Kb, এর মধ্যে jpg ফরম্যাটে হতে হবে। বৈধ ব্যক্তিগত ইমেল, ব্যক্তিগত মোবাইল নম্বর। রাজ্য, জেলা এবং তহসিল/অধিবাসের ব্লক সম্পর্কে বিশদ বিবরণ (শুধুমাত্র JCO/OR তালিকাভুক্তির আবেদনের জন্য)। ক্লাস 10 এর বিশদ মার্কশিট এবং অন্যান্য উচ্চ শিক্ষাগত যোগ্যতা, যে বিভাগ/প্রবেশের জন্য আবেদন করা হয়েছে তার যোগ্যতার মানদণ্ড অনুযায়ী আবেদনপত্র পূরণ করতে হবে। কীভাবে আবেদন করবেন? অনলাইন ভারতীয় সেনা অগ্নিবীর নিয়োগ 2024-এর জন্য @ joinindianarmy.nic.in- এই অফিসিয়াল ওয়েবসাইট খুলুন এবং হোমপেজের জন্য অপেক্ষা করুন। অগ্নিবীর লিঙ্কে ক্লিক করুন এবং এগিয়ে যান। অগ্নিবীর বিজ্ঞপ্তিটি নির্বাচন করুন যার অধীনে আপনি আবেদন করার বাটানটি ক্লিক করুন। মোবাইল নম্বর ব্যবহার করে নিবন্ধন করুন এবং তারপর একটি পাসওয়ার্ড তৈরি করুন। নাম, মায়ের নাম, পিতার নাম, যোগ্যতার মতো বিশদ বিবরণ-সহ আবেদনপত্রটি পূরণ করুন এবং তারপরে এটি জমা দিন। বিশদটি যাচাই করুন এবং তারপরে স্বাক্ষর এবং ফটোগ্রাফ আপলোড করুন। আবেদনপত্র জমা দিন এবং তারপর একটি প্রিন্ট আউট নিন। ইভিএম নিউজ

আরো পড়ুন »
Madhyamik Question paper leak

মাধ্যমিকের ইংরেজি পরীক্ষার প্রশ্নও ফাঁস! ধৃত ৬ পরীক্ষার্থী

ব্যুরো নিউজ, ৩ ফেব্রুয়ারি: গতকাল ছিল মাধ্যমিক পরীক্ষার প্রথম দিন। ওইদিন ছিল বাংলা পরীক্ষা। অভিযোগ, প্রথমদিনের পরীক্ষা শেষ হওয়ার আগেই ফোন মারফত পরীক্ষার প্রশ্নপত্র ছড়িয়ে পড়েছিলো সোশ্যাল মিডিয়ায়। এরপর প্রশ্নপত্রের উপরে থাকা কিউ আর কোড স্ক্যান করে গ্রেফতার করা হয়েছিলো মালদার দুই পড়ুয়াকে। স্বাভাবিকভাবেই সকলের মনে প্রশ্ন উঠেছিলো এতো নিরাপত্তা, আধুনিক ব্যবস্থাপনা ও প্রশ্নপত্রের উপর কিউ আর কোড থাকা সত্ত্বেও কেন প্রশ্ন ফাঁস হওয়া আটকানো যাচ্ছে না? আজও তার ব্যাতিক্রম ঘটেনি। মাধ্যমিক পরীক্ষার দ্বিতীয় দিনেও ফাঁস হলো ইংরেজির প্রশ্নপত্র! প্রশ্নপত্রের উপর কিউ আর কোড! তবুও মাধ্যমিকের প্রশ্ন ফাঁস  এক্ষেত্রে অনেকে মনে করছেন, যেহেতু কিউ আর কোড ‘ক্রপ’ করা হয় তাই পর্ষদকে খুব সহজেই ফাঁকি দেওয়া সম্ভব। কিন্তু, শনিবার মালদার এনায়েতপুর হাইস্কুলে ইংরেজি প্রশ্নপত্র ফাঁসের ঘটনায় ২ জন ছাত্রী ও ৪ জন ছাত্র সহ মোট ৬ জনকে গ্রেফতার করে তাদের পরীক্ষা বাতিল করা হয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ, তারা লাল কালি দিয়ে পর্ষদের লাগানো কিউ আর কোড কেটে দিয়েছিলো। পর্ষদ যাতে কোনভাবে তাদের নাগাল না পায় সেই জন্য তারা এই পদক্ষেপ নিয়েছিলো বলে জানা গিয়েছে। কিন্তু, পর্ষদ শেষে ওই লালকালি প্রশ্নপত্রে লাগানো কিউ আর কোডের উপর থেকে সরাতে সক্ষম হয়। এরপর তাদের বিরুদ্ধে কড়া পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয় পর্ষদের তরফে। ইভিএম নিউজ

আরো পড়ুন »
হাই

মাধ্যমিকের পরিবর্তিত সময় নিয়ে হাইকোর্টে মামলা

ব্যুরো নিউজ, ২৪ জানুয়ারি: মাধ্যমিকের পরিবর্তিত সময় নিয়ে হাইকোর্টে মামলা  এতদিন পর্যন্ত মাধ্যমিক পরীক্ষা সকাল ১১টা ৪৫ মিনিটে শুরু হয়ে দুপুর ৩টের সময় শেষ হতো। পড়ুয়াদের প্রথম ১৫ মিনিট প্রশ্নপত্র পড়ে দেখার জন্য সময় দেওয়া হত। এবার এগিয়ে আনা হয়েছে মাধ্যমিক পরীক্ষার নির্ধারিত সময়। পর্ষদের নোটিশ অনুযায়ী, পরীক্ষা শুরু হবে ৯ টা ৪৫ মিনিটে ও শেষ হবে দুপুর ১টায়। এইবার পর্ষদের সেই সময়সূচী বদলের বিজ্ঞপ্তির বিরুদ্ধেই কলকাতা হাইকোর্টে মামলা দায়ের হলো। হাসপাতালের বিরুদ্ধে ভুল চিকিৎসার অভিযোগ, মৃত ১ নতুন সময় নিয়ে আপত্তি জানিয়েই বুধবার হাইকোর্টে বিচারপতি বিশ্বজিৎ বসুর এজলাসে দায়ের হয়েছে এই মামলা। পরীক্ষার মাত্র কয়েকদিন আগে কেন সময় বদল করা হল, সেই প্রশ্নও তোলা হয়েছে মামলায়। আগামী ২ ফেব্রুয়ারি থেকে পরীক্ষা শুরু হওয়ার কথা। তার আগেই এই মামলার জেরে নতুন জট তৈরি হতে পারে কি না, তা নিয়ে বেড়েছে জল্পনা। পরীক্ষার সময় পরিবর্তন করা হলেও সূচিতে কোনও পরিবর্তন করা হচ্ছে না। মামলাকারীর আইনজীবীর দাবি, আগের সময়েই পরীক্ষা আয়োজন করার নির্দেশ দিক আদালত। মামলায় আরও উল্লেখ করা হয়েছে, নতুন সময়ে পরীক্ষা হলে সমস্যায় পড়বে বহু ছাত্রছাত্রী। বিশেষত গ্রামাঞ্চল, পাহাড় বা সুন্দরবন এলাকার ছাত্রছাত্রীরা সময়ে পরীক্ষাকেন্দ্রে পৌঁছতে পারবে না বলেও আশঙ্কা প্রকাশ করা হয়েছে। উল্লেখ্য, ২০২৩ সালে, মধ্যশিক্ষা পর্ষদ পুরনো সময় পরীক্ষার কথা জানিয়েছিল। তারপরও কীভাবে পরীক্ষার কয়েক দিন আগে সময় বদল করতে পারে, সেই প্রশ্ন তুলেই মামলা করা হয়েছে কলকাতা হাইকোর্টে। ইভিএম নিউজ 

আরো পড়ুন »
আনা

সময় এগিয়ে আনা হলো মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিকের

ব্যুরো নিউজ, ১৮ জানুয়ারি: সময় এগিয়ে আনা হলো মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিকের  দিন অপরিবর্তিত থাকলেও বদল হচ্ছে ২০২৪ সালের মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষার সময়সূচী। মাধ্যমিকের ফাইনাল পরীক্ষার সময় এগিয়ে আনা হচ্ছে ২ ঘণ্টা। গতবছর পর্যন্ত পরীক্ষা শুরু হতো দুপুর ১:৪৫ মিনিটে। কিন্তু এবার তা শুরু হবে সকাল ৯:৪৫ মিনিটে আর চলবে দুপুর ১ টা পর্যন্ত। আগে পরীক্ষা হতো বেলা ১১:৪৫ থেকে দুপুর ৩ টে পর্যন্ত। এমপি বাংলো না ছাড়তে আদালতে মহুয়া একইভাবে উচ্চ মাধ্যমিকের সময়ও এগিয়ে আনা হয়েছে ২ ঘণ্টা। উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষা আগে শুরু হতো ১২ টার থেকে। সেই পরীক্ষা চলতো ৩:১৫ মিনিট পর্যন্ত। কিন্তু এবার পরীক্ষা শুরু হবে সকাল ৯:৪৫ মিনিটে ও চলবে বেলা ১ টা পর্যন্ত। মধ্যশিক্ষা পর্ষদ ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা সংসদের তরফ থেকে একটি বিবৃতি দিয়ে ওই সময়সূচী বদলের কথা জানানো হয়েছে। তবে, ২ ঘণ্টা সময় এগিয়ে আনার কারণ কি তা পর্ষদ বা উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা সংসদের পক্ষ থেকে জানানো হয়নি। ইভিএম নিউজ 

আরো পড়ুন »
TET

TET-এর প্রশ্ন ফাঁস! সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল প্রশ্ন পত্র

ব্যুরো নিউজ, ২৪ ডিসেম্বর: TET-এর প্রশ্ন ফাঁস! সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল প্রশ্ন পত্র টেট চলাকালীন সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল প্রশ্ন পত্র। ভাইরাল হওয়া প্রশ্ন পত্রের সঙ্গে মিল রয়েছে মূল প্রশ্নপত্রের। দাবি পরীক্ষার্থীদের একাংশের। ২৪ ডিসেম্বর রবিবার টেট পরীক্ষা শুরু হয় বেলা ১২ টা থেকে। আর দুপুর ১টা নাগাদ এই প্রশ্নগুলি সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়। কর্ণাটকে হিজাবে নিষেধাজ্ঞা তোলায় তীব্র বিরোধিতা  শুধু কলকাতা নয়, হাওড়া, জলপাইগুড়ি, শিলিগুড়ি সব জায়গা থেকেই পরীক্ষার্থীরা পরীক্ষা দিয়ে বেরিয়ে এসে বলছেন, ভাইরাল হওয়া প্রশ্নপত্রের সঙ্গে মিল রয়েছে মূল প্রশ্নপত্রের। এক পরীক্ষার্থী জানান, “আগের বারও পরীক্ষা দিয়েছিলাম। চাকরি পাইনি। ফালতু। জানি কোনও আশা নেই। এই শেষ বার পরীক্ষা দিলাম আর দেব না।” এ প্রসঙ্গে যদিও পর্ষদ সভাপতি দাবি করেছেন, এমন কোনও অভিযোগ পাইনি। জানা যাচ্ছে, টেট পরীক্ষা চলাকালীন ফেসবুকে একটি প্রশ্ন পত্র ঘোরাঘুরি করছিল। একটি পেজ যার নাম ‘WB TET SLST SET CTET preparation’ সেই পেজ থেকে পোস্ট করা হয় একটি প্রশ্ন পত্র। এরপর আজ পরীক্ষা দিয়ে বের হওয়ার পর চাকরি প্রার্থীরা দাবি করছেন টেটের ‘এ’ সেটের মূল প্রশ্নের সঙ্গে মূল প্রশ্নপত্রের হুবহু মিল রয়েছে ভাইরাল হওয়া ওই প্রশ্নের। প্রসঙ্গে, আইনজীবী বিকাশ ভট্টাচার্য বলেছেন, “যারা পরীক্ষা নিচ্ছেন বা পরীক্ষা নিয়োগের সঙ্গে যুক্ত রয়েছেন এরা পরোক্ষে বা প্রত্যক্ষে দুর্নীতির সঙ্গে জড়িত। দুর্নীতিমুক্ত কোনও কিছুই করতে পারে না। এরা ছাত্রদের দুর্নীতির সঙ্গে যুক্ত করে দেয়।” তৃণমূল মুখপাত্র কুণাল ঘোষ অবশ্য দাবি করেছেন, “এগুলো ভয় তৈরি করার জন্য করা হয়। বহু জায়গায় এমন কোনও ব্যক্তি রয়েছেন যারা কেউ সিপিএম বা বিজেপি সমর্থক, তারা এই কাজ করতেই পারেন। কিন্তু আসল বিষয় হল যে সময় এই ঘটনা ঘটেছে সেই সময় পরীক্ষার্থীরা হলের ভিতরেই ছিল।” তবে যে সময় প্রশ্নপত্র ভাইরাল হয় সেই সময় পরীক্ষার্থীরা পরীক্ষা দিচ্ছিলেন। ফলে তারা উপকৃত হননি। কোনও অসাধু চক্র ইচ্ছাকৃত পর্ষদকে কালিমালিপ্ত করতে এই ঘটনা ঘটিয়েছে। বলে পর্ষদ সূত্রে খবর। ইভিএম নিউজ

আরো পড়ুন »

বিশ্ব জুড়ে

গুরুত্বপূর্ণ খবর

বিশ্ব জুড়ে

গুরুত্বপূর্ণ খবর

ঠিকানা