রাজভবন

ব্যুরো নিউজ, ৫ অক্টোবর: তৃণমূলের ‘রাজভবন চলো’ অভিযান

১০০ দিনের কাজের বকেয়া টাকার দাবিতে আজ বৃহস্পতিবার ‘রাজভবন চলো’ অভিযান তৃণমূলের। তবে, রাজ্যপাল সিভি আন্দ বোস এই মুহুর্তে কলকাতায় নেই। উত্তরবঙ্গের সিকিমে বন্যা পরিস্থিতি খতিয়ে দেখতে উত্তরবঙ্গ সফরে রাজ্যপাল।

‘গলা কেটে দিলেও জয় বাংলা বেরোবে। মোদীর কাছে আত্মসমর্পণ করব না’

গত মঙ্গলবার দিল্লিতে কেন্দ্রীয় গ্রামোন্নয়ন মন্ত্রী গিরিরাজ সিংহের সঙ্গে সাক্ষাতের আবেদন জানানো হয় তৃণমূলের তরফে। যদিও গিরিরাজ সাক্ষাৎ করেননি তৃণমূলের প্রতিনিধিদের সঙ্গে। তবে ওইদিন সন্ধের সময় তৃণমূলের প্রতিনিধি দলের সঙ্গে কথা বলার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন কেন্দ্রীয় প্রতিমন্ত্রী সাধ্বী নিরঞ্জন জ্যোতি। কিন্তু প্রতিনিধিদলের সংখ্যা নিয়ে আপত্তি তুলে তিনিও অভিষেকদের সঙ্গে দেখা করেননি। এরপরেই কৃষি ভবনের ভিতরে অভিষেকের নেতৃত্বে ধর্না শুরু হয়।

তৃণমূলের ধর্নার খবর পেয়ে কৃষি ভবনে পৌঁছয় দিল্লি পুলিশের বিশাল বাহিনী। বলপূর্বক কৃষি ভবন থেকে বের করে বাসে চাপিয়ে অভিষেক-সহ তৃণমূলের নেতা মন্ত্রীদের আটক করে নিয়ে যাওয়া হয়। রাতেই অবশ্য ছাড়া পান সকলেই। ছাড়া পাওয়ার পরেই অভিষেক এক লক্ষ কর্মী নিয়ে রাজভবন ঘেরাওয়ের কর্মসূচি ঘোষণা করেন দিল্লি থেকেই।

বুধবার কলকাতায় ফেরেন অভিষেক। কলকাতা বিমানবন্দরে তিনি জানিয়ে দেন দিল্লিতে নিয়ে যাওয়া ৫০ লক্ষ চিঠি রাজ্যপালের হাতে তুলে দেবেন তাঁরা। অভিষেক বলেন, ‘সাংসদদের টেনে হিঁচড়ে বের করে দেওয়া হয়। ২০ লক্ষ পরিবারকে কাজ করিয়ে দু-তিন মাস মাইনে না দেওয়াও অনৈতিক ও অবৈধ। সেখানে মোদী সরকার ২ বছর ধরে টাকা দেয়নি। ২০ লক্ষ লোকের ৮,০০০ কোটি টাকা গায়ের জোরে আটকে রেখেছে। যদি অভিযোগ করেন ২০ লক্ষ লোক কাজ করেননি, তাহলে বিজ্ঞপ্তি দিয়ে জানান।

এই সকল দাবি নিয়ে আজ বৃহস্পতিবার তৃণমূল কংগ্রেসের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের নেতৃত্বে “রাজভবন চলো” কর্মসূচি পালন করা হয়। তার আগে রাজভবন চত্বরে কড়া নিরাপত্তায় ঘিরে ফেলে হচ্ছে। চলছে পুলিশি টহলদারিও। ইভিএম নিউজ

বিশ্ব জুড়ে

গুরুত্বপূর্ণ খবর

বিশ্ব জুড়ে

গুরুত্বপূর্ণ খবর